বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২১

সম্মান প্রথম বর্ষ ভর্তি পরীক্ষা প্রতিবছরই সারাদেশে অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস এর কারণে ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের যথাসময়ে সম্মান প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারেনি। এমন একটা পরিস্থিতিতে এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক পরিস্থিত আসেনি।

তাই শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে জিএসটি পরীক্ষা নেওয়ার জন্য একটি ভর্তি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। যে সকল শিক্ষার্থী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হতে চাই তারা জিএসটির ভর্তি বিজ্ঞপ্তি অনুসারে ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারবে।

কারণ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় জিএসটি এর আওতাভুক্ত। তাই যারা বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি হতে চায় তারা আমাদের ওয়েবসাইটের পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়লে বিস্তারিত জানতে ও বুঝতে পারবেন।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তি ২০২০-২১

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ২০১৭ সালে। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়। অনেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিকে বশেফমুবিপ্রবি নামে ডেকে থাকে। এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আয়তন প্রায় ৫০০ একর। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বর্তমানে উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করছেন ডঃ সৈয়দ শামসুদ্দিন আহমেদ। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলায় অবস্থিত।

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে দুইভাবে। একটি হলো প্রাথমিক আবেদন এবং অন্যটি হলো চূড়ান্ত আবেদন।
প্রাথমিক আবেদন শুরু হবে এপ্রিল মাসের ১ তারিখে এবং প্রাথমিক আবেদন শেষ হবে এপ্রিল মাসের ১৫ তারিখে। প্রাথমিক আবেদনের শিক্ষার্থীদের জিপিএ অনুসারে ফলাফল প্রদান করা হবে এপ্রিল মাসের ২৩ তারিখে।

এখানে ক্লিক করে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

প্রাথমিক আবেদনের যোগ্যতা এবং নিয়মাবলীঃ- ২০১৬,২০১৭ এবং ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে এবং যেসব শিক্ষার্থী ২০১৯,২০২০ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে তারা প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। প্রাথমিক আবেদনের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর এইচএসসি পরীক্ষার সংশ্লিষ্ট বিভাগে একটি মাত্র ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। অর্থাৎ একটি মাত্র অংশগ্রহণের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মেধা এবং জিপিএ এর মাধ্যমে নির্দিষ্ট উল্লেখিত বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির সুযোগ পাবে।

প্রাথমিক আবেদনের ক্ষেত্রে এ ইউনিটে অর্থাৎ মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের এসএসসি এবং এইচএসসি তে ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ সহ সর্বমোট জিপিএ ৭.০০ থাকতে হবে। সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মানবিক শাখার সহ, মিউজিক, গার্হস্থ্য অর্থনীতি এবং মাদ্রাসা বোর্ড মানবিক শাখা হিসেবে বিবেচিত হবে।

বি ইউনিটের বাণিজ্য শাখা হতে এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ আবেদনকারীদের ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ এবং সর্বমোট ৭.৫০ থাকতে হবে। এক্ষেত্রে সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের বাণিজ্যসহ, ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা এবং ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স বাণিজ্য শাখা হিসেবে বিবেচিত হবে।

সি ইউনিটের বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে চতুর্থ বিষয় সহ ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে। সে ক্ষেত্রে সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের ভোকেশনাল এবং মাদ্রাসা বোর্ড বিজ্ঞান শাখা হিসেবে বিবেচিত হবে।
তাছাড়া ও আবেদনপত্রে ইংরেজি প্রশ্নপত্র চূড়ান্ত আবেদনের সময় বিষয়টি অবশ্যই উল্লেখ করতে হবে। প্রাথমিক আবেদনের পর শিক্ষার্থীদের এইচএসসি থেকে ৬০ শতাংশ জিপিএ এবং এসএসসি থেকে ৪০ শতাংশ জিপিএ নিয়ে একটি ক্রাইটেরিয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মেধা তালিকা প্রস্তুত করা হবে। যে সকল শিক্ষার্থী প্রাথমিকের শিক্ষার্থীর চূড়ান্ত আবেদন করতে পারবে।

চূড়ান্ত আবেদনের ক্ষেত্রে প্রতি ইউনিট ১ লক্ষ ৫০ হাজার শিক্ষার্থী আবেদন করতে পারবে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে যদি একজন শিক্ষার্থী চূড়ান্ত আবেদন না করে তাহলে পরবর্তী মেধাক্রম থেকে শিক্ষার্থীদের সুযোগ দেয়া হবে। চূড়ান্ত আবেদনের আবেদন ফি ৫০০ টাকা। আবেদন ফি মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পরিশোধ করতে হবে।

শিক্ষার্থীদের আসন সংক্রান্ত তথ্যঃ-
চূড়ান্ত আবেদনের সময় শিক্ষার্থীদের ৩১ টি পরীক্ষা কেন্দ্রের মধ্যে ন্যূনতম পাঁচটি কেন্দ্র পছন্দের তালিকায় রাখতে হবে। আর পছন্দের তালিকার মধ্যে শিক্ষার্থীদের এইচএসসির শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে অবস্থান, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি বিবেচনা পূর্বক প্রদানের মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর পরীক্ষা কেন্দ্র নির্ধারণ করা হবে। সেক্ষেত্রে পরীক্ষার কেন্দ্র পরিবর্তনের কোনো সুযোগ থাকবে না।

চূড়ান্ত আবেদনের পর শিক্ষার্থীরা জুনের ১ তারিখ থেকে ১০ তারিখ এর ভেতরে অনলাইনে প্রবেশপত্র গুলো ডাউনলোড করে নিতে পারবে। চূড়ান্ত আবেদনের পর এ ইউনিটের শিক্ষার্থীদের বাংলা-ইংরেজি আইসিটির ওপরে ১০০ মার্কের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।
বি ইউনিটের শিক্ষার্থীদের জন্য হিসাববিজ্ঞান, ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা, বাংলা,-ইংরেজি, আইসিটি এর উপর ১০০ মার্কের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে।
সি ইউনিটের শিক্ষার্থীদের জন্য পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, বাংলা, ইংরেজি, গণিত, জীব বিদ্যা, আইসিটি এর উপরে ১০০ মার্কের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এখানে ক্লিক করে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

এ ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে জুন মাসের ১৯ তারিখে। বি ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে জুন মাসের ২৬ তারিখে এবং সি ইউনিটের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে জুলাই মাসের ৩ তারিখে।

নির্ধারিত দিনে শিক্ষার্থীদের প্রতিটি ইউনিটের দুপুর ১২ টা থেকে ১ঃ৩০ পর্যন্ত পরীক্ষাগুলো অনুষ্ঠিত হয়ে থাকবে।

চূড়ান্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ফলাফলের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীর পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তির সুযোগ দেয়া হবে। সেক্ষেত্রে জিএসটির প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে নিজেদের শর্ত পূরণ করবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলির ব্যবস্থাপনায় শিক্ষার্থীদের ভর্তি প্রক্রিয়া পরিচালিত করবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের বিশ্ববিদ্যালয়ের দেওয়া নির্দেশ মেনে চলতে হবে।

GSA Admission 2022

This is the Official Website of GST Admission for academic session 2020-21. From this website you will get all required information for ongoing admission test on 20 Integrated Universities.

Related Articles

Back to top button
Close